জনপদ গ্রামীণ জনপদ শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতি ব্যাবসা-বানিজ্য-অর্থনীতি আমাদের প্রসঙ্গে

,

,

প্রচ্ছদ
Gaibandha.news image: 'দিঘলকান্দি চরের লাইট হাউস ডা. মফিজার রহমান আনন্দলোক বিদ্যালয়'-'

দিঘলকান্দি চরের লাইট হাউস ডা. মফিজার রহমান আনন্দলোক বিদ্যালয়

গাইবান্ধা ডট নিউজ | বৃহস্পতিবার, ১৩ অক্টোবর, ২০১৭

খুরশিদ বিন আতা খসরু:
‘বিশ্বের যা-কিছু মহান সৃষ্টি চির-কল্যাণকর, অর্ধেক তার করিয়াছে নারী, অর্ধেক তার নর’ কাজী নজরুল ইসলামের ‘নারী’ কবিতার এই স্তবকটি পৃথিবীর সব নারীর জন্য এক অনুপ্রেরণার পাথেয়। যুগে যুগে নারীরা পুরুষের পাশাপাশি বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে অবদান রেখে চলছেন। এমনই একজন নারী মোছা. শাহেদা বেগম।

গাইবান্ধা জেলার সাঘাটা উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়নের উত্তর দিঘলকান্দি চরবাসী যখন একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপনের জন্য স্বপ্ন দেখছিলেন ঠিক সেই সময়ে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে এগিয়ে এলেন অক্ষর জ্ঞানহীন এই নারী। তাঁরই দানকৃত এক বিঘা মাটিতে নেটজ বাংলাদেশের সহযোগিতায় উত্তরবঙ্গের অন্যতম সমাজসেবামূলক প্রতিষ্ঠান গণ উন্নয়ন কেন্দ্রের পরিচালনায় স্থাপিত হলো ডা. মফিজার রহমান আনন্দলোক বিদ্যালয়। সালটা ২০১৩।

ডা. মফিজার রহমান ৩০ মার্চ ১৯১৪ সালে গাইবান্ধা জেলার সাঘাটা উপজেলার পদুম শহরের মিয়া বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। তিঁনি ঢাকা মিটফোর্ড মেডিকেল ছাত্র সংসদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছিলেন। প্রতিষ্ঠাতা কাউন্সিলার ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের। ১৯৭০ সালে সাঘাটা-ফুলছড়ি আসন থেকে প্রাদেশিক আইন পরিষদের সদস্য (এমপি) নির্বাচিত হন। ছিলেন একজন মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা। প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক ছিলেন গাইবান্ধা ঈদ-গাহ্‌ ট্রাস্টের। ১৯৮০ সালের ১৭ অক্টোবর গাইবান্ধার জিগজাগ রোড, মাস্টারপাড়ার বাস ভবনে তিঁনি ইন্তেকাল করেন। তাঁর নামেই সাঘাটা উপজেলার উত্তর দিঘলকান্দি চরের এই স্কুলটির নামকরণ করা হয়।

ফুলছড়ি ঘাট থেকে নদী পথে ৮ নটিক্যাল মাইল পূর্ব দক্ষিণে নৌকা থেকে নেমে কিছুটা দুর্গম পথ পায়ে হেঁটে আমরা যখন ডা. মফিজার রহমান আনন্দলোক বিদ্যালয়ে পৌঁছলাম তখন ঘড়ির কাটায় বারোটা ছুঁই-ছুঁই।

প্রবল বন্যাতেও যেনো পানি প্রবেশ করেতে না পারে সেদিকে লক্ষ রেখে মূল মাটি থেকে বেশ কিছুটা উচ্চতায় নির্মাণ করা হয়েছে স্কুলের অফিস-রুম ও ক্লাসের জন্য চারটি কামড়াসহ বরান্দা। পুরোটাই ছাদ পেটানো। মূল ভবনের সমনে আছে ছোট্ট একটি বাগান। এক পার্শ্বে ঝকঝকে শৌচাগারসহ বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা, আরেক পার্শ্বে একটি শহীদ মিনার।

তখন ক্লাস চলছিল শিশু শ্রেণি, প্রথম শ্রেণি ও দ্বিতীয় শ্রেণির। আমরা গিয়ে অফিস-রুমে বসলাম। ১২ টা ২০ মিনিট থেকে শুরু হলো তৃতীয়, চতুর্থ ও পঞ্চম শ্রেণির ক্লাস। তৃতীয় শ্রেণির ক্লাসে গিয়ে দেখা গেল বিভিন্ন শিক্ষা-উপকরণসহ শিক্ষিকা মোছা. রিনা আক্তার কার্পেটে বসে থাকা বাচ্চাদের বেশ আনন্দঘন পরিবেশে ক্লাস নিচ্ছেন।

পঞ্চম শ্রেণীর ক্লাস নিচ্ছিলেন মো. জাহিদুল ইসলাম। লাল রঙের টেবিল বেঞ্চিতে লাল-সবুজের ইউনিফর্ম পরা শিক্ষার্থীরা ‘ওয়েলকাম তালি’র মধ্য দিয়ে আমাদেরকে ক্লাসে বরণ করে নিলো। ক্লাসের বাচ্চাদের ছন্দবদ্ধ সেই তালির শব্দ ও মুখ থেকে উচ্চারিত বাক্যমালা আমাদের সকলকে মুগ্ধ করল। ক্লাসের প্রায় সব শিক্ষার্থীর পরিস্কার হাতের লেখা নজর কাড়ার মতো।

বিদ্যালয়ে মোট শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১৭৩, সেদিনের উপস্থিতি সংখ্যা ছিল ১৬৪। শতকরা হিসেবে বলতে গেলে বলতে হয় প্রায় ৯৫ পারসেন্ট।

শুধু পাঠ্য বইয়ে মুখ গুঁজে থাকা নয়। শিশু শ্রেণি বাদে অন্য পাঁচটি ক্লাসের শিক্ষার্থীদের মেধা বিকাশে পাঠ্য বইয়ের পাশাপাশি আছে সিলেবাসের বাহিরের কিছু গল্পের বই ও ‘একক রিডিং’ বই। যা শিক্ষার্থীদের পড়ার দক্ষতা, বলার দক্ষতা, শোনার দক্ষতা ও তাদের শব্দ ভাণ্ডারকে সম্বৃদ্ধ করতে এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, দেশ প্রেম ও নিজেকে একজন সত্যিকারের মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে।

ক্লাসের বই থেকে শুরু করে খাতা, কলম, কাঠপেনসিল, রংপেনসিল, শার্পনার, পাঠ-টিকা ও প্রজেক্ট পেপারসহ সব কিছুই গণ উন্নয়ন কেন্দ্রের পক্ষ থেকে বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়। বছরে দুইবার ফ্রি স্বাস্থ্যসেবার ব্যবস্থা আছে। যেখানে ছাত্র-ছাত্রীর পাশাপাশি তাঁদের অভিভাবকদেরকেও বিনা মূল্যে অভিজ্ঞ ডাক্তারের মাধ্যমে ব্যবস্থাপত্রসহ প্রয়োজনীয় সমস্ত ঔষধ-পত্র প্রদান করা হয়।

দিঘলকান্দির চর শিক্ষার আলো থেকে পিছিয়ে পড়া একটি জনপদের নাম। এই দুর্গম চরে স্বাধীনতা দিবস, বিজয় দিবস, শহিদ দিবসসহ জাতীয় ও আন্তর্জাতিক দিবসগুলোর তাৎপর্য ছাত্র-ছাত্রী এবং অভিভাবকদের কাছে ডা. মফিজার রহমান আনন্দলোক বিদ্যালয় পৌঁছিয়ে দিচ্ছে একটি লাইট হাউসের মতো।

লেখক: খুরশিদ বিন আতা খসরু, সম্পাদক ও প্রকাশক: আলোকিত গাইবান্ধা।

 



Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image

বিভাগ ছবি সংবাদ

Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image

বিভাগ ফটো গ্যালারী

Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image

বিভাগ ফটো ফিচার

Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image

বিভাগ ভিডিও গ্যালারী

Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image

বিভাগ ভিডিও প্রতিবেদন

Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image

সর্বশেষ খবর

Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news image: 'হলি আর্টিজান হামলার রায় আজ, আদালত চত্বরে বিশেষ নিরাপত্তা'-'

হলি আর্টিজান হামলার রায় আজ, আদালত চত্বরে বিশেষ নিরাপত্তা

গাইবান্ধা ডট নিউজ | বুধবার ২৭ নভেম্বর ২০১৯

খুরশিদ বিন আতা খসরু:
‘বিশ্বের যা-কিছু মহান সৃষ্টি চির-কল্যাণকর, অর্ধেক তার করিয়াছে নারী, অর্ধেক তার নর’ কাজী নজরুল ইসলামের ‘নারী’ কবিতার এই স্তবকটি পৃথিবীর সব নারীর জন্য এক অনুপ্রেরণার পাথেয়। যুগে যুগে নারীরা পুরুষের পাশাপাশি বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে অবদান রেখে চলছেন। এমনই একজন নারী মোছা. শাহেদা বেগম।

গাইবান্ধা জেলার সাঘাটা উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়নের উত্তর দিঘলকান্দি চরবাসী যখন একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপনের জন্য স্বপ্ন দেখছিলেন ঠিক সেই সময়ে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে এগিয়ে এলেন অক্ষর জ্ঞানহীন এই নারী। তাঁরই দানকৃত এক বিঘা মাটিতে নেটজ বাংলাদেশের সহযোগিতায় উত্তরবঙ্গের অন্যতম সমাজসেবামূলক প্রতিষ্ঠান গণ উন্নয়ন কেন্দ্রের পরিচালনায় স্থাপিত হলো ডা. মফিজার রহমান আনন্দলোক বিদ্যালয়। সালটা ২০১৩।

ডা. মফিজার রহমান ৩০ মার্চ ১৯১৪ সালে গাইবান্ধা জেলার সাঘাটা উপজেলার পদুম শহরের মিয়া বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। তিঁনি ঢাকা মিটফোর্ড মেডিকেল ছাত্র সংসদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছিলেন। প্রতিষ্ঠাতা কাউন্সিলার ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের। ১৯৭০ সালে সাঘাটা-ফুলছড়ি আসন থেকে প্রাদেশিক আইন পরিষদের সদস্য (এমপি) নির্বাচিত হন। ছিলেন একজন মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা। প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক ছিলেন গাইবান্ধা ঈদ-গাহ্‌ ট্রাস্টের। ১৯৮০ সালের ১৭ অক্টোবর গাইবান্ধার জিগজাগ রোড, মাস্টারপাড়ার বাস ভবনে তিঁনি ইন্তেকাল করেন। তাঁর নামেই সাঘাটা উপজেলার উত্তর দিঘলকান্দি চরের এই স্কুলটির নামকরণ করা হয়।

ফুলছড়ি ঘাট থেকে নদী পথে ৮ নটিক্যাল মাইল পূর্ব দক্ষিণে নৌকা থেকে নেমে কিছুটা দুর্গম পথ পায়ে হেঁটে আমরা যখন ডা. মফিজার রহমান আনন্দলোক বিদ্যালয়ে পৌঁছলাম তখন ঘড়ির কাটায় বারোটা ছুঁই-ছুঁই।

প্রবল বন্যাতেও যেনো পানি প্রবেশ করেতে না পারে সেদিকে লক্ষ রেখে মূল মাটি থেকে বেশ কিছুটা উচ্চতায় নির্মাণ করা হয়েছে স্কুলের অফিস-রুম ও ক্লাসের জন্য চারটি কামড়াসহ বরান্দা। পুরোটাই ছাদ পেটানো। মূল ভবনের সমনে আছে ছোট্ট একটি বাগান। এক পার্শ্বে ঝকঝকে শৌচাগারসহ বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা, আরেক পার্শ্বে একটি শহীদ মিনার।

তখন ক্লাস চলছিল শিশু শ্রেণি, প্রথম শ্রেণি ও দ্বিতীয় শ্রেণির। আমরা গিয়ে অফিস-রুমে বসলাম। ১২ টা ২০ মিনিট থেকে শুরু হলো তৃতীয়, চতুর্থ ও পঞ্চম শ্রেণির ক্লাস। তৃতীয় শ্রেণির ক্লাসে গিয়ে দেখা গেল বিভিন্ন শিক্ষা-উপকরণসহ শিক্ষিকা মোছা. রিনা আক্তার কার্পেটে বসে থাকা বাচ্চাদের বেশ আনন্দঘন পরিবেশে ক্লাস নিচ্ছেন।

পঞ্চম শ্রেণীর ক্লাস নিচ্ছিলেন মো. জাহিদুল ইসলাম। লাল রঙের টেবিল বেঞ্চিতে লাল-সবুজের ইউনিফর্ম পরা শিক্ষার্থীরা ‘ওয়েলকাম তালি’র মধ্য দিয়ে আমাদেরকে ক্লাসে বরণ করে নিলো। ক্লাসের বাচ্চাদের ছন্দবদ্ধ সেই তালির শব্দ ও মুখ থেকে উচ্চারিত বাক্যমালা আমাদের সকলকে মুগ্ধ করল। ক্লাসের প্রায় সব শিক্ষার্থীর পরিস্কার হাতের লেখা নজর কাড়ার মতো।

বিদ্যালয়ে মোট শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১৭৩, সেদিনের উপস্থিতি সংখ্যা ছিল ১৬৪। শতকরা হিসেবে বলতে গেলে বলতে হয় প্রায় ৯৫ পারসেন্ট।

শুধু পাঠ্য বইয়ে মুখ গুঁজে থাকা নয়। শিশু শ্রেণি বাদে অন্য পাঁচটি ক্লাসের শিক্ষার্থীদের মেধা বিকাশে পাঠ্য বইয়ের পাশাপাশি আছে সিলেবাসের বাহিরের কিছু গল্পের বই ও ‘একক রিডিং’ বই। যা শিক্ষার্থীদের পড়ার দক্ষতা, বলার দক্ষতা, শোনার দক্ষতা ও তাদের শব্দ ভাণ্ডারকে সম্বৃদ্ধ করতে এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, দেশ প্রেম ও নিজেকে একজন সত্যিকারের মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে।

ক্লাসের বই থেকে শুরু করে খাতা, কলম, কাঠপেনসিল, রংপেনসিল, শার্পনার, পাঠ-টিকা ও প্রজেক্ট পেপারসহ সব কিছুই গণ উন্নয়ন কেন্দ্রের পক্ষ থেকে বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়। বছরে দুইবার ফ্রি স্বাস্থ্যসেবার ব্যবস্থা আছে। যেখানে ছাত্র-ছাত্রীর পাশাপাশি তাঁদের অভিভাবকদেরকেও বিনা মূল্যে অভিজ্ঞ ডাক্তারের মাধ্যমে ব্যবস্থাপত্রসহ প্রয়োজনীয় সমস্ত ঔষধ-পত্র প্রদান করা হয়।

দিঘলকান্দির চর শিক্ষার আলো থেকে পিছিয়ে পড়া একটি জনপদের নাম। এই দুর্গম চরে স্বাধীনতা দিবস, বিজয় দিবস, শহিদ দিবসসহ জাতীয় ও আন্তর্জাতিক দিবসগুলোর তাৎপর্য ছাত্র-ছাত্রী এবং অভিভাবকদের কাছে ডা. মফিজার রহমান আনন্দলোক বিদ্যালয় পৌঁছিয়ে দিচ্ছে একটি লাইট হাউসের মতো।

লেখক: খুরশিদ বিন আতা খসরু, সম্পাদক ও প্রকাশক: আলোকিত গাইবান্ধা।

 



Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image

বিভাগ ছবি সংবাদ

Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image

বিভাগ ফটো গ্যালারী

Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image

বিভাগ ফটো ফিচার

Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image

বিভাগ ভিডিও গ্যালারী

Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image

বিভাগ ভিডিও রিপোর্ট

Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image

সর্বশেষ খবর

Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image

Gaibandha.news Ad. image

Gaibandha.news Ad. image

Gaibandha.news Ad. image


Gaibandha.news Ad. image

গল্প-প্রবন্ধ-নিবন্ধ

মতামত-বিশ্লেষণ

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি

কৃষি-বিজ্ঞান

স্বাস্থ্য-চিকিৎসা

সাজসজ্জা

রান্নাবান্না

ভ্রমণ-বিনোদন

চারু-কারুকলা

শিশুকিশোর

ইভেন্ট ফটো গ্যালারী

Gaibandha.news Ad. image

ইভেন্ট ভিডিও গ্যালারী

Gaibandha.news Ad. image

আর্কাইভ

SunMonTueWedThuFriSat
1

2

3

4

5

6

7

8

9

10

11

12

13

14

15

16

17

18

19

20

21

22

23

24

25

26

27

28

29

30

31

Gaibandha.news Ad. image

ইভেন্ট বোর্ড

খোঁজখবর - চাকুরি বিঞ্জপ্তি

Gaibandha.news Ad. image

খোঁজখবর - টেন্ডার বিঞ্জপ্তি

Gaibandha.news Ad. image

খোঁজখবর - বেচাকেনা

জরীপ/ভোটাভুটি (হাঁ/না)

Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Activities

© 2019 Gaibandha.News. All rights reserved. Inspired by w3schools.com

Crafted with by arccSoftTech & Powered with CSR by arccY2K.com a Subsidiary of BangladeshICT.com