জনপদ গ্রামীণ জনপদ শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতি ব্যাবসা-বানিজ্য-অর্থনীতি আমাদের প্রসঙ্গে

,

,

প্রচ্ছদ
Gaibandha.news image: 'উষ্ণতার খোঁজে কদর বেড়েছে গাইবান্ধার ধুনকরদের'-'

উষ্ণতার খোঁজে কদর বেড়েছে গাইবান্ধার ধুনকরদের

গাইবান্ধা ডট নিউজ | রবিবার ২৪ নভেম্বর ২০১৯

গাইবান্ধা ডট নিউজ:

ঋতু পরিবর্তনজনিত কারনে এবার হেমন্তেই মিলছে শীতের আমেজ। কুয়াশার শুভ্র চাদর গায়ে হামা দিতে দিতে এগিয়ে আসছে শীত। হাড় কাঁপানো না হলেও শীতের আমেজ প্রতিদিনই বাড়ছে একটু একটু করে। দিন যতো যাচ্ছে প্রকৃতিতে তার ছাপ ততোই স্পষ্টতর হয়ে উঠছে। দিনে রোদের উত্তাপ অনেক কমে গেছে। সন্ধ্যায় একটু গরম কাপড় পরেই বের হতে হচ্ছে রাস্তায়। আর রাতে কম্বল বা কাঁথা না জড়িয়ে ঘুমানো যাচ্ছে না। ভোরে ও সন্ধ্যায় পড়ছে ঘন কুয়াশা। হাওয়ায় মিলছে হিমেল স্পর্শ। পথের পাশের জংলি গাছপালা, ঝোপঝাড়, মাঠের দূর্বাঘাস সারারাত ঝরে পড়া শিশিরে ভিজে উঠছে। আর সেই শিশিরবিন্দুতে সকালের সোনাঝরা রোদ হীরার কুচির মতো দ্যুতিময় হয়ে ছড়াচ্ছে তার সাতরঙ বর্ণালি। শহর কিংবা গ্রামাঞ্চল সবখানেই শীতের আমেজ পুরোদমে উপভোগ করছেন মানুষজন। তাই এরই মধ্যে চারিদিকে শুরু হয়ে গেছে শীতবুড়িকে বরণ করে নেওয়ার প্রস্তুতি। পাশাপাশি এবার শীত কেমন পড়বে তা নিয়েও শুরু হয়ে গেছে নানান জল্পনা।

এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে গাইবান্ধা অঞ্চলে দিনের সর্বোচ্চ গড় তাপমাত্রা ৩০ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে থাকছে। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা এসে দাঁড়িয়েছে ১৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। ঋতু পরিক্রমায় শীত আসতে এখনও এক মাস বাকি থাকলেও গাইবান্ধায় এখনই পাওয়া যাচ্ছে শীতের আমেজ। পরিবারের লোকজন বাক্সবন্দি করে রাখা লেপ তোষক বের করছে ঠিক করার জন্য। আবার কেউ নতুনভাবে তৈরি করাচ্ছেন। মানুষের শরীরের কাপড়ে পরিবর্তন আসার সঙ্গে সঙ্গে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন গাইবান্ধার ধুনকররাও। জেলার বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ফিরে ধুনকররা তৈরি করেছেন লেপ-তোষক।

বিশেষ করে গত দু’দিন ধরে পাখিডাকা ভোরে ধুনকররা তুলা, কাপড় ও ধুনার নিয়ে বেরিয়ে পড়ছেন। কেউ সাইকেলে, কেউবা ভ্যানে আবার কেউবা পায়ে হেঁটে ঘুরছেন জেলা শহরের গলিতে-গলিতে। সকাল থেকে দুপুর অব্দি একটি বাড়িতে লেপ বা তোষক তৈরি করলেও অর্ডার নিচ্ছেন পরের দিনের।

ধুনকরের টুং-টাং আওয়াজ আর বাতাসে উড়ে বেড়ানো তুলা জানিয়ে দিচ্ছে শীত আসছে। ফলে জেলা শহরের কাচারিবাজার এলাকায় লেপ-তোষক তৈরির দোকানগুলোতেও অতিরিক্ত কারিগর কাজ শুরু করে দিয়েছেন। পাঙা-মহল্লার পাশাপাশি দোকানেও কাজ চলছে পুরোদমে। তাদের ব্যস্ততার যেনো শেষ নেই।

গাইবান্ধার কাচারিবাজারের ধুনকর এন্তাজ আলী জানান, এক সপ্তাহ আগেও তেমন কাজ-কর্ম ছিল না। কিন্তু গত সপ্তাহ থেকে ভোরের হালকা কুয়াশায় শীতের আমেজ বিরাজ করছে। এতেই লেপ তৈরির অর্ডার দেওয়া-নেওয়া শুরু হয়ে গেছে। দোকানে আসার পর থেকেই অর্ডার মিলেছে বলে জানান তিনি।

অপর ধুনকর মকবুল হোসেন বলেন, এখন কেবল শুরু। আর ক’দিন পর রাত-দিন সমানতালেই কাজ করতে হবে। বর্তমানে পুরোনো লেপ নতুনভাবে তৈরির অর্ডারই বেশি পাওয়া যাচ্ছে। সেই সাথে গার্মেন্টসের তুলা দিয়ে তৈরি করা লেপও বিক্রি হচ্ছে। যার বিক্রি মূল্য সিঙ্গেল ৫শ’ টাকা। আর ডাবল লেপ ১১শ’ টাকা। এছাড়া ভালো শিমুল তুলা দিয়ে নুতনভাবে একটি সিঙ্গেল লেপ তৈরি করতে খরচ পড়ছে ১ হাজার টাকা, আর ডাবল লেপ তৈরিতে খরচ হচ্ছে ১৫শ’ থেকে ১৭শ’ টাকা। আর সিঙ্গেল তোষক ৬শ’ টাকা এবং ডাবল ১২শ’ টাকা দিয়ে তৈরি করানো হচ্ছে বলে জানান তিনি।

কাচারিবাজার এলাকার ধুনকর মন্টু মিয়া বলেন, একটি লেপ তৈরিতে একজন কারিগরের সময় লাগে এক থেকে দেড় ঘণ্টা। এভাবে একজন কারিগর দিনে গড়ে ৫ থেকে ৬টি লেপ তৈরি করতে পারেন।

দিনে ৫ থেকে ৬টি তোষক তৈরিতেও একই সময় ব্যয় হয়। তুলা ও কাপড়ের দাম বাড়ায় গত বছরের তুলনায় এবার লেপ তোষকে ১শ’ থেকে ১শ’ ৫০ টাকা বেশি লাগছে। এছাড়া বর্তমান বাজারমূল্যের সাথে সঙ্গতি রেখে কারিগরদের মজুরিও বেড়েছে। এরপরও শীত নিবারণের জন্য মানুষ আগে থেকেই অর্ডার দিচ্ছে। সামনের সপ্তাহ থেকে কাজের চাপ আরও বাড়বে।

 

কেআরআর/জিএআই



Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image

বিভাগ ছবি সংবাদ

Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image

বিভাগ ফটো গ্যালারী

Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image

বিভাগ ফটো ফিচার

Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image

বিভাগ ভিডিও গ্যালারী

Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image

বিভাগ ভিডিও প্রতিবেদন

Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image

সর্বশেষ খবর

Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news image: 'হলি আর্টিজান হামলার রায় আজ, আদালত চত্বরে বিশেষ নিরাপত্তা'-'

হলি আর্টিজান হামলার রায় আজ, আদালত চত্বরে বিশেষ নিরাপত্তা

গাইবান্ধা ডট নিউজ | বুধবার ২৭ নভেম্বর ২০১৯

গাইবান্ধা ডট নিউজ:

ঋতু পরিবর্তনজনিত কারনে এবার হেমন্তেই মিলছে শীতের আমেজ। কুয়াশার শুভ্র চাদর গায়ে হামা দিতে দিতে এগিয়ে আসছে শীত। হাড় কাঁপানো না হলেও শীতের আমেজ প্রতিদিনই বাড়ছে একটু একটু করে। দিন যতো যাচ্ছে প্রকৃতিতে তার ছাপ ততোই স্পষ্টতর হয়ে উঠছে। দিনে রোদের উত্তাপ অনেক কমে গেছে। সন্ধ্যায় একটু গরম কাপড় পরেই বের হতে হচ্ছে রাস্তায়। আর রাতে কম্বল বা কাঁথা না জড়িয়ে ঘুমানো যাচ্ছে না। ভোরে ও সন্ধ্যায় পড়ছে ঘন কুয়াশা। হাওয়ায় মিলছে হিমেল স্পর্শ। পথের পাশের জংলি গাছপালা, ঝোপঝাড়, মাঠের দূর্বাঘাস সারারাত ঝরে পড়া শিশিরে ভিজে উঠছে। আর সেই শিশিরবিন্দুতে সকালের সোনাঝরা রোদ হীরার কুচির মতো দ্যুতিময় হয়ে ছড়াচ্ছে তার সাতরঙ বর্ণালি। শহর কিংবা গ্রামাঞ্চল সবখানেই শীতের আমেজ পুরোদমে উপভোগ করছেন মানুষজন। তাই এরই মধ্যে চারিদিকে শুরু হয়ে গেছে শীতবুড়িকে বরণ করে নেওয়ার প্রস্তুতি। পাশাপাশি এবার শীত কেমন পড়বে তা নিয়েও শুরু হয়ে গেছে নানান জল্পনা।

এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে গাইবান্ধা অঞ্চলে দিনের সর্বোচ্চ গড় তাপমাত্রা ৩০ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে থাকছে। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা এসে দাঁড়িয়েছে ১৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। ঋতু পরিক্রমায় শীত আসতে এখনও এক মাস বাকি থাকলেও গাইবান্ধায় এখনই পাওয়া যাচ্ছে শীতের আমেজ। পরিবারের লোকজন বাক্সবন্দি করে রাখা লেপ তোষক বের করছে ঠিক করার জন্য। আবার কেউ নতুনভাবে তৈরি করাচ্ছেন। মানুষের শরীরের কাপড়ে পরিবর্তন আসার সঙ্গে সঙ্গে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন গাইবান্ধার ধুনকররাও। জেলার বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ফিরে ধুনকররা তৈরি করেছেন লেপ-তোষক।

বিশেষ করে গত দু’দিন ধরে পাখিডাকা ভোরে ধুনকররা তুলা, কাপড় ও ধুনার নিয়ে বেরিয়ে পড়ছেন। কেউ সাইকেলে, কেউবা ভ্যানে আবার কেউবা পায়ে হেঁটে ঘুরছেন জেলা শহরের গলিতে-গলিতে। সকাল থেকে দুপুর অব্দি একটি বাড়িতে লেপ বা তোষক তৈরি করলেও অর্ডার নিচ্ছেন পরের দিনের।

ধুনকরের টুং-টাং আওয়াজ আর বাতাসে উড়ে বেড়ানো তুলা জানিয়ে দিচ্ছে শীত আসছে। ফলে জেলা শহরের কাচারিবাজার এলাকায় লেপ-তোষক তৈরির দোকানগুলোতেও অতিরিক্ত কারিগর কাজ শুরু করে দিয়েছেন। পাঙা-মহল্লার পাশাপাশি দোকানেও কাজ চলছে পুরোদমে। তাদের ব্যস্ততার যেনো শেষ নেই।

গাইবান্ধার কাচারিবাজারের ধুনকর এন্তাজ আলী জানান, এক সপ্তাহ আগেও তেমন কাজ-কর্ম ছিল না। কিন্তু গত সপ্তাহ থেকে ভোরের হালকা কুয়াশায় শীতের আমেজ বিরাজ করছে। এতেই লেপ তৈরির অর্ডার দেওয়া-নেওয়া শুরু হয়ে গেছে। দোকানে আসার পর থেকেই অর্ডার মিলেছে বলে জানান তিনি।

অপর ধুনকর মকবুল হোসেন বলেন, এখন কেবল শুরু। আর ক’দিন পর রাত-দিন সমানতালেই কাজ করতে হবে। বর্তমানে পুরোনো লেপ নতুনভাবে তৈরির অর্ডারই বেশি পাওয়া যাচ্ছে। সেই সাথে গার্মেন্টসের তুলা দিয়ে তৈরি করা লেপও বিক্রি হচ্ছে। যার বিক্রি মূল্য সিঙ্গেল ৫শ’ টাকা। আর ডাবল লেপ ১১শ’ টাকা। এছাড়া ভালো শিমুল তুলা দিয়ে নুতনভাবে একটি সিঙ্গেল লেপ তৈরি করতে খরচ পড়ছে ১ হাজার টাকা, আর ডাবল লেপ তৈরিতে খরচ হচ্ছে ১৫শ’ থেকে ১৭শ’ টাকা। আর সিঙ্গেল তোষক ৬শ’ টাকা এবং ডাবল ১২শ’ টাকা দিয়ে তৈরি করানো হচ্ছে বলে জানান তিনি।

কাচারিবাজার এলাকার ধুনকর মন্টু মিয়া বলেন, একটি লেপ তৈরিতে একজন কারিগরের সময় লাগে এক থেকে দেড় ঘণ্টা। এভাবে একজন কারিগর দিনে গড়ে ৫ থেকে ৬টি লেপ তৈরি করতে পারেন।

দিনে ৫ থেকে ৬টি তোষক তৈরিতেও একই সময় ব্যয় হয়। তুলা ও কাপড়ের দাম বাড়ায় গত বছরের তুলনায় এবার লেপ তোষকে ১শ’ থেকে ১শ’ ৫০ টাকা বেশি লাগছে। এছাড়া বর্তমান বাজারমূল্যের সাথে সঙ্গতি রেখে কারিগরদের মজুরিও বেড়েছে। এরপরও শীত নিবারণের জন্য মানুষ আগে থেকেই অর্ডার দিচ্ছে। সামনের সপ্তাহ থেকে কাজের চাপ আরও বাড়বে।

 

কেআরআর/জিএআই



Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image

বিভাগ ছবি সংবাদ

Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image

বিভাগ ফটো গ্যালারী

Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image

বিভাগ ফটো ফিচার

Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image

বিভাগ ভিডিও গ্যালারী

Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image

বিভাগ ভিডিও রিপোর্ট

Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image

সর্বশেষ খবর

Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image

Gaibandha.news Ad. image

Gaibandha.news Ad. image

Gaibandha.news Ad. image


Gaibandha.news Ad. image

গল্প-প্রবন্ধ-নিবন্ধ

মতামত-বিশ্লেষণ

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি

কৃষি-বিজ্ঞান

স্বাস্থ্য-চিকিৎসা

সাজসজ্জা

রান্নাবান্না

ভ্রমণ-বিনোদন

চারু-কারুকলা

শিশুকিশোর

ইভেন্ট ফটো গ্যালারী

Gaibandha.news Ad. image

ইভেন্ট ভিডিও গ্যালারী

Gaibandha.news Ad. image

আর্কাইভ

SunMonTueWedThuFriSat
1

2

3

4

5

6

7

8

9

10

11

12

13

14

15

16

17

18

19

20

21

22

23

24

25

26

27

28

29

30

31

Gaibandha.news Ad. image

ইভেন্ট বোর্ড

খোঁজখবর - চাকুরি বিঞ্জপ্তি

Gaibandha.news Ad. image

খোঁজখবর - টেন্ডার বিঞ্জপ্তি

Gaibandha.news Ad. image

খোঁজখবর - বেচাকেনা

জরীপ/ভোটাভুটি (হাঁ/না)

Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Gaibandha.news Ad. image
Activities

© 2019 Gaibandha.News. All rights reserved. Inspired by w3schools.com

Crafted with by arccSoftTech & Powered with CSR by arccY2K.com a Subsidiary of BangladeshICT.com